আপনি এখানে
প্রচ্ছদ > ইতিহাস-ঐতিহ্য > ডাঃ আব্দুল্লাহ আসামী হলে গোটা চিকিৎসা ব্যবস্থাই আসামী

ডাঃ আব্দুল্লাহ আসামী হলে গোটা চিকিৎসা ব্যবস্থাই আসামী

প্রভাষ আমিনঃ    ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আফিয়ার মৃত্যু দুঃখজনক। এই বয়সের একটি মেয়ের মৃত্যু যে কাউকে ছুঁয়ে যাবে। তার বন্ধুদেরও নিশ্চয়ই খুব মন খারাপ হয়েছে। কিন্তু তাই বলে হাসপাতালে ভাঙচুর, ডাক্তারদের মারধোর, ডাক্তারদের বিরুদ্ধে মামলা, গ্রেপ্তার- সব মিলে বিষয়টা বাড়াবাড়ি হয়েছে। ভুল চিকিৎসা হয় না, তা বলছি না, আকছার হয়। বেসরকারি মেডিকেল কলেজে যে মানের শিক্ষা দেয়া হচ্ছে, তাতে ভবিষ্যতে সার্টিফিকেটধারী ভুয়া ডাক্তারের সংখ্যা আরো বাড়বে। কিন্তু যাদের দেখে এখনও বাংলাদেশের চিকিৎসা ব্যবস্থার ওপর আস্থা রাখি, ডাঃ এ বি এম আব্দুল্লাহ তাদের একজন। আফিয়ার মৃত্যুর ঘটনায় যে ৯ জনকে আসামী করে মামলা হয়েছে, তার এক নম্বরে অাছে ডাঃ আব্দুল্লাহর নাম। পত্রিকায় দেখলাম, পুলিশ সেন্ট্রাল হাসপাতালের এক পরিচালককে গ্রেপ্তার করেছে, পরে আদালত তাকে জামিন দিয়েছে। বাকি ৮ আসামী নাকি পলাতক। তারমানে ডাঃ আব্দুল্লাহও পলাতক।

কী অবিশ্বাস্য! ডাঃ আব্দুল্লাহকে আসামী করা আসলে গোটা চিকিৎসা ব্যবস্থাকেই আসামী করার নামান্তর। আগেই বলেছি, ভুল চিকিৎসা হয়। কিন্তু ডাঃ আব্দুল্লাহর বিরুদ্ধেও ভুল চিকিৎসার অভিযোগ এনে ভাঙচুর, মারধোর, মামলা করলে আমাদের আমাদের আর ভরসার জায়গা থাকে না। ভুল চিকিৎসায় যেমন রোগী মারা যেতে পারে, তেমনি সঠিক চিকিৎসার পরও মারা যেতে পারে। আফিয়া ডেঙ্গুতে মারা গেছেন না ব্লাড কান্সারে, তার চিকিৎসা ঠিক ছিল না ভুল; সেটা বিচারের ক্ষমতা নিশ্চয়ই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, প্রক্টর, সাংবাদিক বা পুলিশের নেই।

ডাঃ আব্দুল্লাহ ভুল করেছিলেন কিনা, সেটা যাচাই করতে পারবেন ডাক্তাররাই। প্রয়োজনে বিএমডিসি বা বিএমএ তদন্ত করুক। কিন্তু অবিলম্বে মামলা প্রত্যাহারের অনুরোধ জানাচ্ছি। এ বি এম আব্দুল্লাহর মত ডাক্তার ভুল চিকিৎসার মামলার আসামী হয়ে পালিয়ে বেরাচ্ছেন, এটা আমাদের সবার জন্যই লজ্জার।
ডাঃ আব্দুল্লাহ পালিয়ে বেরাচ্ছেন, এই কথাটি লেখায় অনেকে অাপত্তি করেছেন। কিন্তু বাস্তবতা হলো উনি এই মামলার প্রধান আসামী এবং পুলিশের দৃষ্টিতে উনি পলাতক। আমি তাকে অসম্মানিত করার জন্য এটা লিখিনি, শুধু বাস্তবতাটা তুলে ধরেছি।

অনেকে বলছেন, ডাঃ আব্দুল্লাহ আমার পূর্ব পরিচিত বলেই আমি তার পক্ষে লিখেছি। আমি নিশ্চিত করে বলছি, তিনি আমার পূর্ব পরিচিত নন। বছর দশেক আগে রোগী হিসেবে একবার গিয়েছিলাম। কিন্তু ওনার সিরিয়াল পাওয়া অনেক কষ্টকর বলে পরে আর যাইনি।

লেখকঃ সিনিয়র সাংবাদিক

মন্তব্য করুন

উপরে